আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন চায় না: ড. আবদুল মোমেন

3

নিউজ ডেস্ক:

বাংলাদেশের মানবাধিকার নিয়ে ইউ.এস.এ এবং মানবাধিকার সংগঠনগুলো বারবার উদ্বেগ জানালেও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের নিজেদের মধ্যে গোলাগুলি,মানবাধিকার লংঘন নিয়ে USA কথা বলেনা বলে অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.আবদুল মোমেন

তিনি আরো জানান,UNHCR এর কাজ ছিল রোহিঙ্গা সহায়তা এবং প্রত্যাবাসন করা।কিন্তু রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন হলে তারা চাকুরী হারাবে।যার ফলস্বরুপ তারা রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে দীর্ঘমেয়াদে রাখতে আগ্রহী।

মিয়ানমার সীমান্তে চোরাচালান,ইয়াবাপাচারের মত কাজগুলো চলছে উল্লেখ করে আরো ভয়াবহ পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে সীমান্তে আরো কঠোর অবস্থানে যাওয়ার ইংগিত দেন তিনি।

তিনি এও অভিযোগ করেন,রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ সরকার আলোচনা করলেও বিশ্বমোড়লেরা এখনো মিয়ানমারে ব্যবসা করে যাচ্ছে যার দরুন চাইলেও কঠোর ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হচ্ছেনা।

অন্যদিকে জাতিসংঘ থেকে তেমন কোন সাহায্য না পাওয়ার ও অভিযোগ করেন তিনি।সদস্য রাষ্ট্রগুলো এবং নিরাপত্তা পরিষদ পাশে থাকলে রোহিঙ্গা শরনার্থী সমস্যা দীর্ঘায়িত হতো না বলেও জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

রোহিঙ্গাদের একজনকেও ফেরত না পাঠাতে পারার জন্য এ সময় হতাশা জ্ঞাপন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.আবদুল মোমেন।

অন্যদিকে পবিত্র কোরবানির ঈদ উপলক্ষ্যে ভাসানচর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের জন্য ২৩০ টির মতো গরু কোরবানীর উদ্দ্যোগ নেয়া হয়েছে।কক্সবাজারের উখিয়া,টেকনাফ,কুতুপালং ক্যাম্পের রোহিঙ্গাদের জন্য কোরবানির উদ্দ্যোগ নেয়া হলেও ক্ষতিগ্রস্থ বাংলাদেশীদের জন্য তেমন কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

উল্লেখ্য,তেল,মাংস,চাল,আটা বাজারে চোরাইভাবে বিক্রি,ইয়াবা চোরাচালান,ডাকাতি,মাছ ধরা সহ নানাভাবে বাংলাদেশীদের চাইতে কিছু কিছু রোহিঙ্গা অধিক স্বাবলম্বী হলেও বাংলাদেশীদের অবস্থার কোন পরিবর্তন হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here