টেকনাফে আব্দুর রহমান হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

107

সাঈদ আবদুল্লাহ সানি, সাবরাংঃ

টেকনাফে পারিবারিক জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে সাবরাং এর বাসিন্দা পোল্ট্রি খামার ব্যবসায়ী আব্দুর রহমানের হত্যাকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত মানববন্ধনে অংশগ্রহন করেন স্থানীয় এলাকার রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ,ছাত্র সমাজ এবং সাধারণ জনগণ।

বুধবার বেলা সাড়ে ৪ টার দিকে টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের নয়া পাড়া বাজার সংলগ্ন টেকনাফ-শাহপরীর দ্বীপ সড়কে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত মানববন্ধনে অংশ নেয়া বক্তারা এ হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে এ ঘটনায় জড়িত সকল আসামীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে তাঁদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানান। এছাড়া মানববন্ধনে নিহত আব্দুর রহমানের শিশুপুত্র বাবা হত্যার প্রতিবাদে হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবি জানান।

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম মুন্না, স্থানীয় ইউপি সদস্য জাফর আলম, স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা নজরুল, আলী, ইমলামসহ প্রমুখ।

জানা যায়। গত সোমবার দুপুর ২:৩০ মিনিটের দিকে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের লাফাঘোনার হাজী আব্দুল মজিদের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আবদুর রহমানের বড় ভাই মোহাম্মদ আবদুল্লাহর বরাত দিয়ে জানা যায়। গত সোমবার দুপুরে চাচা আব্দুল মজিদের বাড়িতে পারিবারিক জমিজমার বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। এমন সময় কচুবনিয়া এলাকার আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে সিরাজ উল্লাহ, মাওলানা ফয়েজ, আমানুল্লাহ আমান, মুহাম্মদ ইসমাইল, মুহাম্মদ আসিফ, মুহাম্মদ শফিক অতর্কিতভাবে আবদুর রহমানের উপর হামলা চালিয়ে আব্দুর রহমানকে এলোপাতাড়ি মারধর করা হয়।

একপর্যায়ে আসামিরা আবদুর রহমানকে মারাত্মকভাবে ছুরিকাঘাত করে এতে রক্তাক্ত অবস্থায় সে মাটিতে লুটে পড়লে আসামিরা ঘটনাস্থল থেকে খেটেপরে। পরে স্থানীয় লোকজন এসে আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং সেখান থেকে পরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানে সন্ধ্যা ৬:৩০ মিনিটের দিকে আবদুর রহমান মারা যান। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন বলে জানিয়েছেন নিহতের পরিবার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here