টেকনাফে মাদক সংশ্লিষ্টদের প্রার্থিতা বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

114

হেলাল উদ্দিন, টেকনাফঃ
কক্সবাজারের টেকনাফে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মাদক সংশ্লিষ্ট প্রার্থীদের প্রার্থিতা বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান করেছে চুসাট।

১৮ মার্চ (বৃহস্পতিবার) বিকেলে টেকনাফ উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে চট্টগ্রামস্থ অধ্যয়নরত  টেকনাফ উপজেলার শিক্ষার্থীদের সংগঠন “চিটাগাং ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস’ এসোসিয়েশন অব টেকনাফ (চুসাট) এর উদ্যোগে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।
পরে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মো: পারভেজ চৌধুরী ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বেদারুল ইসলামের কাছে স্মারকলিপি তুলে দেন এ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।
মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি সাইফুল্লাহ মানছুর। সাবেক সভাপতি রবিউল আলম রবি ও সাধারণ সম্পাদক হেলাল উদ্দিন সহ আরও কয়েকজন বক্তব্য দেন।

বক্তারা বলেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত টেকনাফের শিক্ষার্থীদের সংগঠন “চিটাগাং ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস’ এসোসিয়েশন অব টেকনাফ (চুসাট)’ টেকনাফের সর্বসাধারণের পক্ষে এ উদ্যোগ হাতে নিয়েছে। বাংলাদেশের সর্বদক্ষিণের সীমন্তবর্তী এ উপজেলা মাদক চোরাচালান ও মানব পাচারের মতো অপরাধের জন্য দেশে ও বিদেশে ব্যাপকভাবে আলোচিত-সমালোচিত একটি উপজেলা। বিশেষ করে, দেশ জুড়ে ইয়াবা নামক এ বিধ্বংসী মাদক টেকনাফকে নেতিবাচক শিরোনাম বানিয়েছে  ।
সম্প্রতি আমরা লক্ষ্য করছি, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে টেকনাফ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে মাদক ব্যবসায়ী থেকে সেবী , মাদক সংশ্লিষ্ট অনেক চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য নির্বাচন করার জন্য তোড়জোড় শুরু করেছেন। এদের মধ্য অনেকেই আছে মাদক মামলার আসামী , দুই দফায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পুলিশের আইজিপির হাতে ইয়াবা ও অস্ত্র দিয়ে আত্মসমর্পণ করা ১২৩জন ইয়াবা কারবারিরা জামিনে বেরিয়ে এসে, সরকারি বিভিন্ন বাহিনীর করা তালিকাভুক্ত, আত্মস্বীকৃত মাদক কারবারি, মানব পাচারকারী এবং মাদক ব্যবসায়ীদের পৃষ্ঠপোষকতা করা ব্যক্তিবর্গ । যাদের অধিকাংশের হাতেই অবৈধ অস্ত্র আছে বলে আমরা আশঙ্কা প্রকাশ করছি। নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হওয়ার আগেই তারা কালো টাকা ছড়ানোর মাধ্যমে নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশকে বিনষ্ট করার প্রচেষ্টা শুরু করে দিয়েছেন। এভাবে চলতে থাকলে উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অস্ত্রে ও কালো টাকার জোরে তারা প্রভাব বিস্তার করতে তৎপর হবে। তারা নির্বাচিত হলে রাষ্ট্র ঘোষিত ‘মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেল’ অভিযান প্রশ্নাতীত ব্যর্থ হবে। এলাকা থেকে দেশের সর্বোচ্চ পর্যায়ের বিদ্যাপীঠে অধ্যয়নরত সচেতন নাগরিক হিসেবে আমরা নির্লিপ্ত থাকতে পারি না।
এ প্রসঙ্গে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পারভেজ চৌধুরী’র কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের দেয়া একটি স্মারকলিপি হাতে পেয়েছি। সেটি জেলা প্রশাসক বরাবর পাঠানো হয়েছে। উদ্যোগটি যথেষ্ট প্রশংসনীয়। এসব নিয়ে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলা খুবই জরুরী। যারা মাদক সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি তাদেরকে সামাজিকভাবে বয়কট করলে কোনো ভাবে তারা নির্বাচিত হতে পারবে না বলে তিনি জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here