ফেসবুকে অপপ্রচারের বিরুদ্ধে জামালের নিন্দা ও প্রতিবাদ!

55

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

গতকাল ০৯জুলাই মোহাম্মদ জামাল এর নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আব্দুর রশিদ পিতা- মৃত মোহাম্মদ ইলিয়াছ, মধ্যম জালিয়া পাড়া, টেকনাফ পৌরসভা তাঁর নিজস্ব ফেসবুক আইডিতে পোস্টকৃত অপ্রীতিকর ও কাল্পনিক তথ্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন সাবরাং মন্ডল পাড়ার বাসিন্দা মোঃ জামাল।

পোস্টকৃত তথ্যের ব্যাখ্যা ও প্রতিবাদ:
আমি জামাল হোসাইন। সাবরাং ইউনিয়নের মন্ডল পাড়ার এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে আমার জন্ম। আমার বাবা মাস্টার নুরুল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে সুনামের সাথে জীবন-নির্বাহ করে আসছেন।

উল্লেখিত আব্দুর রশিদ ও আমার রাজনৈতিক মতাদর্শ এক হওয়ার সুবাদে উভয়ের মধ্যে একটি সুসম্পর্ক বিদ্যমান ছিল। টেকনাফস্থ আলো শপিং কমপ্লেক্সে আমার ব্যক্তিগত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আব্দুর রশিদের আনাগোনা ছিল। সুযোগ বুঝে বিগত ৬ মাস আগে সে আমার ব্যক্তিগত ব্যাংক একাউন্টের চেক বইয়ের একটি পাতা সুকৌশলে চুরি করে নেয়। এরপর থেকে বিভিন্নভাবে আমাকে ব্ল্যাকমেইলিং এর পাশাপাশি চাঁদা দাবি করে আসছিল। আমি চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় অবশেষে মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও কাল্পনিক গল্প সাজিয়ে আমার বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার শুরু করে- যা আমার ব্যক্তিত্বকে চরমভাবে হীন করার অপচেষ্টা ছাড়া কিছুই নয়।

তাছাড়া তিনি আমার বিরুদ্ধে বাহরাইনের ভিসা সংক্রান্ত বিষয়ে অপপ্রচার করেছেন যা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। কারণ গত ৩/৪ বছর ধরে বাহরাইনের ভিসা বন্ধ রয়েছে। পাশাপাশি করোনা মহামারীর কারণে দীর্ঘদিন ধরে ভিসা সংক্রান্ত কার্যক্রমও সংকুচিত করা হয়েছে। এমতাবস্থায় এ ধরণের ভিত্তিহীন ও সাজানো গল্প নিছক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

উল্লেখ্য, আমার এবি ব্যাংক একাউন্টের চেক বইয়ের পাতাটি হারিয়ে যাওয়ার পর বিগত ১মাস আগে টেকনাফ মডেল থানায় একটি জিডি করিয়েছি। পাশাপাশি ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে চেকটি হারানোর বিষয়ে জিডি কপি সহ অবহিত করি।

একজন সুস্থ মানসিকতার ব্যক্তি হিসেবে আমি এ অপপ্রচারের নিন্দা জানাই এবং শিগগিরই তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

সর্বোপরি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমার বিরুদ্ধে সাজানো অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্যে সকলকে অনুরোধ করছি।

নিবেদক-
মো: জামাল
পিতা: মাস্টার নুরুল ইসলাম
মন্ডল পাড়া, সাবরাং, টেকনাফ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here