টেকনাফে বনভূমি দখল করে নতুন করে রোহিঙ্গা ক্যাম্প স্থাপনের পায়তারা

52

বিশেষ প্রতিনিধি, রূপান্তর টিভিঃ

টেকনাফে বনভূমি দখল করে অবৈধভাবে রোহিঙ্গা ক্যাম্প স্থাপনের পায়তারা করার অভিযোগ ওঠেছে একটি মহলের বিরুদ্ধে।

টেকনাফের ন্যাচার পার্ক সংলগ্ন দমদমিয়া এলাকায় বনভূমি দখল করে একটি মহল নতুন করে রোহিঙ্গা ক্যাম্প স্থাপনের প্রচেষ্টা চালায়। বনবিভাগের প্রচেষ্ঠায় এ যাত্রায় সে প্রক্রিয়া নস্যাৎ করা হয়।

তথ্য সূত্রে জানা যায়, ন্যাচারপার্ক এলাকায় বনভূমি দখল করে অবৈধভাবে রোহিঙ্গা স্থাপনের খবর পেয়ে পেয়ে টেকনাফ রেঞ্জ কর্মকর্তা সৈয়দ আশিক আহমদ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি লিখিত ভাবে অবহিত করেন এবং উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে সেটি উচ্ছেদ করে দেয়।

এইদিকে নতুন করে অবৈধ এ রোহিঙ্গা ক্যাম্প স্থাপন নস্যাৎ করে দেয়ায় বন ও পরিবেশ রক্ষার কর্মীসহ  রেঞ্জ কর্মকর্তাকে সাধুবাদ জানান স্থানীয় জনসাধারণ।

অন্যদিকে, এ ঘটনার পর প্রভাবশালী মহলটি রেঞ্জ কর্মকর্তাকে দেখে নেয়ার হুমকি দেয় বলে জানিয়েছেন সৈয়দ আশিক আহমদ। এ ঘটনায় তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

এব্যাপারে টেকনাফ রেঞ্জ কর্মকর্তা সৈয়দ আশিক আহমেদ বলেন, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ রয়েছে রোহিঙ্গাদের জন্য বনভূমি যা দেয়া হয়েছে এর বাইরে নতুন করে এক ইঞ্চি বনভূমিও যাতে নষ্ট করতে দেয়া না হয়। আমি যতক্ষণ টেকনাফ রেঞ্জ এর দায়িত্বে আছি সেই নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করে যাব। কোন ধরনের হুমকির মুখে অমি মাথা নত করব না।”

নতুন করে রোহিঙ্গা ক্যাম্প স্থাপন নতুন ষড়যন্ত্রের অংশ নয় তো?

নতুন করে রোহিঙ্গা ক্যাম্প স্থাপনের খবর মিয়ানমারে পৌঁছলে সেখানকার রোহিঙ্গারা নতুন করে এপারে চলে আসতে উৎসাহিত হতে পারে বলে আশংকা করেন সচেতন মহল। উক্ত মহলটি সে ধরণের একটি ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখাও উচিত বলে মনে করেন সচেতন মহল।

এছাড়া সংরক্ষিত গভীর বনের পাশে রোহিঙ্গা ক্যাম্প স্থাপন উগ্র রোহিঙ্গাদের কোন যোগ-সাজশ রয়েছে কিনা তাও ভাবনার বিষয় বলে মনে করছেন তারা।

বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্যে সরকারের উচ্চ মহলের জোর হস্তক্ষেপ দাবি করেন স্থানীয় সচেতন মহল। পাশাপাশি মহলটি যাতে আবার নতুন করে এই ধরণের ক্যাম্প স্থাপনের ধৃষ্টতা না দেখায় এমন কার্যকর ব্যবস্থা করার প্রত্যাশা তাদের (সচেতন মহলের)।

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here